জুড়ীমৌলভীবাজার

ব’ন্যার সুযোগে জিনিসপত্রের দাম বাড়ানোয় জুড়ীতে দুই দোকানে জ’রিমানা

টাইমস ডেস্কঃ মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজে’লার ব’ন্যাদুর্গত এলাকায় নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়িয়ে দেওয়ার অ’ভিযোগ পেয়ে ভ্রাম্যমাণ আ’দালত পরিচালনা করা হয়েছে।

আজ সোমবার দুপুরে উপজে’লা সদরের কা’মিনীগঞ্জ বাজারে চালানো এ অ’ভিযানে দুটি মুদিদোকানের মালিককে আড়াই হাজার টাকা জ’রিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আ’দালত। এ ছাড়া কয়েকজন ব্যবসায়ীদের সতর্ক করে দেওয়া হয়।

ভুক্তভোগী লোকজন ও উপজে’লা প্রশাসনের সূত্রে জানা গেছে, অ’তিবৃষ্টি ও উজান থেকে নামা পাহাড়ি ঢলে ১৭ জুন থেকে জুড়ী উপজে’লার পাঁচটি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা ব’ন্যার পানিতে প্লাবিত হয়। এই সুযোগে স্থানীয় অনেক ব্যবসায়ী হঠাৎ করেই নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন জিনিসের দাম বাড়িয়ে দেন। অনেকে বিষয়টি জানিয়ে প্রশাসনের কর্মক’র্তাদের কাছে মুঠোফোনে খুদে বার্তা পাঠান।

স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি বলেন, ব’ন্যায় বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (বিউবো) স্থানীয় উপকেন্দ্রে পানি উঠে যাওয়ায় বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। এ কারণে এলাকায় বিদ্যুৎ না থাকায় মোমবাতির চাহিদা বেড়ে গেছে। এই সুযোগে দোকানিরা ১০ টাকা মূল্যের প্রতি পিস মোমবাতি ১৫ টাকায় বিক্রি করছিলেন।

তিন-চার দিন আগে মুড়ির কেজি ৬০ টাকা থাকলেও এখন নেওয়া হচ্ছে ৬৫-৭০ টাকা। পেঁয়াজ-রসুনের দামও কেজিপ্রতি ৫ টাকা বাড়ানো হয়েছে। ৫০ কেজির চালের বস্তার দামও ২০০ থেকে ৩০০ টাকা করে বেশি নেওয়া হচ্ছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, আজ দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উপজে’লার সহকারী কমিশনার (ভূমি) রতন কুমা’র অধিকারীর নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আ’দালতের দলটি উপজে’লা সদরের কা’মিনীগঞ্জ বাজারে অ’ভিযানে যান।

এ সময় মূল্যতালিকায় ঘষামাজা করা ও মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য রাখার দায়ে বিসমিল্লাহ স্টোরে ৫০০ এবং মায়ের দোয়া স্টোরে দুই হাজার টাকা জ’রিমানা করা হয়। অ’ভিযানকালে ভ্রাম্যমাণ আ’দালতের বিচারক কয়েকজন ব্যবসায়ীকে সতর্ক করে দেন। এ সময় জুড়ী থা’নার উপ পরিদর্শক (এসআই) সিরাজুল ইস’লাম উপস্থিত ছিলেন।

এ ধরনের অ’ভিযান অব্যাহত থাকবে জানিয়ে ভ্রাম্যমাণ আ’দালতের বিচারক সহকারী কমিশনার (ভূমি) রতন কুমা’র অধিকারী বলেন, হঠাৎ করে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বাড়িয়ে দেওয়ার অ’ভিযোগ আসে তাদের কাছে। তাই এ অ’ভিযান চালানো হয়। একদিকে ব’ন্যায় মানুষ ক’ষ্টে আছে, অন্যদিকে ব্যবসায়ীরা জিনিসপত্রের দাম বাড়িয়ে মানুষকে আরও ক’ষ্টে ফেলা হচ্ছে। এটা অমানবিক।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!