খেলাধুলা

২০২২ বিশ্বকাপে খেলবে বাংলাদেশ, এমন কথা বলেননি বলে সালাউদ্দিনের দাবি

২০২২ বিশ্বকাপে খেলবে বাংলাদেশ, একসময় এই স্বপ্ন দেখানো কাজী সালাউদ্দিন এখন বিষয়টি এলে কৌশলে এড়িয়ে যান। তিনি বলেন, তার কাজ মাঠে ফুটবল রাখা এবং সব সুবিধা নিশ্চিত করা। ফুটবলাররা মাঠে ব্যর্থ হলে তার কিছু করার নেই বলেও মন্তব্য করেন বাফুফে সভাপতি। নারী ফুটবলের উন্নয়ন ও ফিফার কাছে সাবেক কোচ জেমি ডের অ’ভিযোগসহ বেশ কিছু বিষয় নিয়ে যমুনা টেলিভিশনের সাথে খোলামেলা কথা বলেছেন বাফুফে সভাপতি।

কাজী সালাউদ্দিন স্বীকার করতে চান না যে তিনি বলেছিলেন, ২০২২ সালে বিশ্বকাপ খেলবে বাংলাদেশ। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ২০২২ বিশ্বকাপে যেন খেলতে পারি সে ব্যাপারে চেষ্টা করবো, এমনটি বলেছিলাম। আর আমি তো বলতে পারি না যে, বিশ্বকাপ খেলবো। ফ্রান্সও তো বলতে পারতো না যে, সবশেষ আসরে তারা বিশ্বকাপ জিতবে। আমি তো ফুটবলার। কথাটা ছিল, একটি স্বপ্ন নিয়ে এগোচ্ছি যে, দেখা যাক ২০২২ বিশ্বকাপে কোয়ালিফাই করতে পারি কিনা। কাজ করতে গিয়ে দেখলাম, এটি সম্ভব না। কিন্তু কথাটা বলার পরই আমা’র প্রতিপক্ষরা সেটি এমনভাবে প্রচার করলো, খবর প্রকাশ করলো যে, আমি যেন কোনোদিন খেলিনি! আর কোনো কথাও বলিনি আমি!

বাফুফের দায়িত্বে থাকা অবস্থায় বাংলাদেশের ফুটবলকে কোন জায়গায় দেখে যেতে চান কাজী সালাউদ্দিন; এ প্রশ্নের জবাবে বাফুফে সভাপতি বলেন, বাস্তবতা বিচার করে এশিয়ার অন্যতম শক্ত দল হিসেবে বাংলাদেশকে দেখতে চান তিনি। এছাড়া বোর্ডে তার অধস্তন সকলেই নির্বাচিত এবং সবাই মিলে ভালো কাজ করতে চান বলেও দাবি করেন কাজী সালাউদ্দিন। তিনি জানান, নারী ফুটবল এর আগে ছিল না। বেশ কয়েকজন মিলে কঠোর পরিশ্রম করে ২৪ ঘণ্টা কাজ করে নারী ফুটবল দল বানিয়ে ফেলেছে। এ ধরনের অর্জনগুলো তিনি উপভোগ করেন।

বাফুফে স’ম্পর্কে ফিফার কাছে একটি অ’ভিযোগ করেছিলেন জেমি ডে। সে প্রসঙ্গে কাজী সালাউদ্দিন বলেন, আম’রা তাকে পদচ্যুত করিনি। সে ছুটি কাটিয়েছে এবং বেতনও নিয়েছে। এখন পুরো বেতন চাচ্ছে। বলছে, আমাকে তো পদচ্যুত করা হয়নি।

উত্তরসূরি হিসেবে কাউকে ভেবেছেন কিনা, এ প্রশ্নের জবাবে কাজী সালাউদ্দিন জানান, তিনি এখনো অবসরের কথা ভাবেননি। যখন ভাববেন, তখন নিশ্চয়ই এমন কাউকে খুঁজবেন যিনি বাংলাদেশ ফুটবলের হাল ধরতে পারবেন।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!