সারাদেশ

ফুফা-ফুফুর বি'রু'দ্ধে আ'ট'কে রেখে দেহব্যবসার অ'ভিযোগে তরুণীর মা'ম'লা

নিউজ ডেস্ক- চাকরির আশ্বা'সে জো'র করে আ'ট'কে রেখে পাঁচ মাস দেহব্যবসা করানোর অ'ভিযোগে ফুফু-ফুফাসহ তিনজনের বি'রু'দ্ধে মা'ম'লা করেছেন এক তরুণী।

সোমবার গভীর রাতে বরিশাল মেট্রোপলিটন পু'লিশের বন্দর থা'নায় মা'ম'লা'টি করেন ওই তরুণী।

অ'ভিযু'ক্তরা হলো— বাদীর ফুফু নূপুর বেগম, ফুফা নজরুল ই'স'লা'ম এবং বন্দর থা'নাধীন নরকাঠী এলাকার সোহেল খান।

মা'ম'লার এজাহারে বাদী উল্লেখ করেন, ১৪ মাস আগে তার বিয়ে হয়। পারিবারিক কারণে স্বামীর সঙ্গে বিরোধের জেরে বিয়ের দুই মাস পর বাদী স্বামীর বাড়ি থেকে বরিশাল বন্দর থা'নাধীন নরকাঠী এলাকায় বাবার বাড়িতে ফিরে আসেন। বাবার আর্থিক অবস্থা খা'রা'প হওয়ায় ফুফু নূপুর বেগম ওই তরুণীকে ঢাকায় চাকরি দেওয়ার কথা বলেন।

নিজের আর্থিক উন্নতির কথা চিন্তা করে ফুফুর কথায় রাজি হয়ে ৯ মাস আগে বাবা-মাকে না জানিয়ে ঢাকায় আসেন ওই তরুণী। এ সময় ফুফা নজরুল ই'স'লা'ম ও সোহেল খানের সহায়তায় ফুফুর ঢাকার শনিরআখড়ার বাসায় নিয়ে যায় তাকে। বাসায় যাওয়ার পর তিনি দেখতে পান ওই বাসায় অ'বৈ'ধ দেহব্যবসার চিত্র।

কয়েক দিন পর ফুফুকে চাকরির কথা জিজ্ঞাসা করলে তাকে দেহব্যবসা করতে হবে বলে জানায়। তাদের কথায় রাজি না হওয়ায় তারা ওই তরুণীকে মা'রধর করে একটি রুমে ব'ন্দি করে রাখে। বাদী দেহব্যবসায় রাজি না হলে তাকে খু'ন করার হু'মকি দেয় তারা। কোনো উপায় না পেয়ে ওই তরুণী দেহব্যবসায় লিপ্ত হয়। বাধ্য হয়ে দীর্ঘ ৫ মাস অ'বৈ'ধ দেহব্যবসা করতে হয় তাকে।

দুই মাস আগে ওই তরুণী ফুফুর বাসার গৃহপরিচারিকার সহায়তায় পালিয়ে বরিশালে গ্রামের বাড়ি ফিরে আসেন। আত্মীয়স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে মা'ম'লা দায়েরের বিলম্ব হয়েছে বলেও এজাহারে উল্লেখ করা হয়।

এ বিষয়ে বন্দর থা'নার ওসি মো. আসাদুজ্জামান বলেন, ওই তরুণীর অ'ভিযোগ আমলে নিয়ে রাতেই মা'ম'লা হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছে। বিষয়টি ত'দ'ন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Back to top button